আওয়ামী লীগ বিশ্বদরবারে দেশকে কলংকিত করেছে – তারেক রহমান

 

আওয়ামী লীগ বিশ্বদরবারে দেশকে কলংকিত করেছে
জিয়া হত্যার কথা শেখ হাসিনা জানতেন
ভাড়াটে খুনী র্যাব বিলুপ্ত করতে হবে
শেখ হাসিনা সোনা চোর
তারেক রহমান 

ওএনবি (মালয়েশিয়া), ১১ জুন : বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমান বলেছেন, আওয়ামী লীগ যখনি ৰমতায় আসে তখনই বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে হেয় প্রতিপন্ন করে৷ শেখ মুজিব ৰমতায় এসে বাংলাদেশকে তলাবিহীন জুড়ি হিসেবে পরিচিত করেছিলো৷ শেখ হাসিনা ৯৬ সালে ৰমতায় আসার পর বাংলাদেশকে দূনর্ীতিতে এক নম্বর বানিয়েছে৷ ২০০৮ সালে ৰমতা দখল করে পদ্মাসেতুর দূনর্ীতিতে জড়িয়ে আরো একবার বাংলাদেশকে বিশ্বের দরবারে কলংকিত করেছে৷ এবার আবার সোনাচোরদের পৰ নিয়েছেন অভিযোগ করে তারেক রহমান শেখ হাসিনাকে “সোনা চোর” আখ্যা দেন৷
বুধবার কুয়ালালামপুরে পুত্রা ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে দেওয়ান তুন রাজ্জাক-২ অডিটরিয়ামে আয়োজিত “বাংলাদেশের প্রথম প্রেসিডেন্ট ও স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৩তম শাহাদত বার্ষিকী” শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ সব কথা বলেন৷
তারেক রহমান অভিযোগ করে বলেন, শেখ হাসিনা দেশে ফেরার ১৭ দিনের মাথায়ই জিয়াউর রহমান হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়৷ জিয়াউর রহমান হত্যা সম্পর্কে শেখ হাসিনা জানতেন৷ আর জানতেন বলেই জিয়া হত্যার পর তিনি বোরখা পরে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন৷ শেখ হাসিনাকে রিমান্ডে নেওয়া হলেই জিয়া হত্যার রহস্য বের হবে৷ তারেক রহমান বলেন, দশট্রাক অবৈধ অস্ত্র যেসব দায়িত্বশীল মন্ত্রী এবং কর্মকর্তারা আটক করলো তাদেরই যদি ফাঁসির আদেশ হয় তাহলে সাম্প্রতিকসময়ে যারা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করেছে তাদের কি হওয়া উচিত ৷
তারেক রহমান বলেন, কথায় বলে কাক কাকের মাংশ খায়না৷ কিন্তু অবৈধ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে কোন উপায়ে ৰমতায় থাকার জন্য নিজের দল আওয়ামী লীগ নেতাকমর্ীদেরও হত্যা করছে৷ তারেক রহমান শেখ হাসিনাকে রাষ্ট্রপরিচালনায় ব্যর্থ আখ্যা দিয়ে বলেন, বিডিআরএ কর্মরত সেনাবাহিনীর ৫৭ জন কর্মকর্তা হত্যার জন্য ডিফেন্স মিনিস্ট্রির দায়িত্বশীল শেখ হাসিনার কেন ফাঁসি হবেনা৷ তিনি বিডিআর হত্যাকান্ডের জন্য শেখ হাসিনার ফাঁসি দাবী করেন৷
তারেক রহমান বলেন, আওয়ামী লীগ সমাজ রাষ্ট্র ও জনগনের জন্য বিপদজনক৷ শেখ হাসিনার সঙ্গে দেশের জনগণ নেই৷ তিনি দেশের সকল প্রশাসন ধ্বংস করেছেন৷ আদালতকে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন৷ এমনকি আদালতের বিরম্নদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন৷ এ সময় তারেক রহমান সমাবেশে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত বিচারপতি কাজী এবাদুল হকের একটি মনত্মব্য উদ্ধৃত করেন৷ আদালত সম্পর্কে শেখ হাসিনার মনত্মব্যের পরিপ্রেৰিতে “বিচারপতি কাজী এবাদুল হক শেখ হাসিনার প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন,খুন গুম অপহরণ হবে অথচ বিচারকরা সরকারী হসত্মৰেপের কারণে কোন বিচার করতে পারবেননা তাহলে বিচার বিভাগ রাখার কি প্রয়োজন৷ বিচারকদের প্রতি অনাস্থা থাকলে আপনি নিজেই তো বিচার করতে পারেন৷ তাদের রাখার কি প্রয়োজন”? তারেক রহমান বলেন, দেশের আইন শৃংখলা রক্ষাবাহিনীর ঘাড়ে বন্দুক রেখে শেখ হাসিনা ৰমতা দখল করে রেখেছেন৷ তিনি বলেন, একসময়কার এলিট ফোর্স র্যাব এখন ভাড়াটে খুনী বাহিনী হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে৷ আওয়ামী নেতা মন্ত্রীদের আত্মীয় স্বজন আর দলীয় ক্যাডারদের ঢুকিয়ে র্যাবকে পরিণত করা হয়েছে আওয়ামী রৰীবাহিনীতে৷ সভায় তারেক রহমান র্যাব বিলুপ্তির দাবীতে একটি গণস্বাৰর কর্মসূচী উদ্বোধন করেন৷ এরআগে ২৮ মে লন্ডনে তিনি এই কর্মসূচীর উদ্বোধন করেছিলেন ৷
সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, যুবদল কেন্দ্রীয় নেতা এডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, বিএনপি’র সাবেক এমপি নুরম্নল ইসলাম মনি, খুলনা মহনগর বিএনপি’র সভাপতি এডভোকেট শফিকুল আলম মনা, মালয়েশিয়া বিএনপি’র নেতা মোশাররফ হোসেন এবং মাহবুব আলম শাহ প্রমুখ৷ সভা পরিচালনা করেন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক সহসভাপতি শহীদুল ইসলাম বাবুল ও যুবদলের সহসভাপতি সেলিম৷
তারেক রহমান বলেন, বাংলাদেশের দূর্ভাগ্য, বাপ বেটির শাসনামলে বাংলাদেশের জনগণ সবসময়ই নিরাপত্তাহীন৷ তিনি ১৯৭৩ সালের ১৭ আগষ্ট দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত একটি সংবাদের শিরোনাম উলেস্নখ করে বলেন, শেখ মুজিবের শসমনামলের এখনো কোন পরিবর্তন হয়নি৷ ১৯৭৩ সালের ১৭ আগষ্ট দৈনিক ইত্তেফাকের শিরোনাম ছিলো, “নিরাপত্তার আকুতি গ্রাম-বাংলার ঘরে ঘরে”৷ সভায় ওই রিপোর্টটি পড়ে শোনান তারেক রহমান৷ রিপোর্টে লেখা হয়, “সমগ্র দেশে আইনশৃংঙ্খলা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনতির ফলে এবং মানুষের জান-মাল ও ইজ্জতের প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার অভাবে গ্রাম-গঞ্জ ও শহরবাসীর মনে হতাশার মাত্রা দিন দিন বাড়িয়াই চলিয়াছে এবং আইন রক্ষাকারী সংস্থার প্রতি মানুষের আস্থা লোপ পাইতেছে৷ অবস্থা এমন দাঁড়াইয়াছে যে, চুরি-ডাকাতি, লুটতরাজ তো আছেই, রাজনৈতিক, সামাজিক ও বৈষয়িক কারণে শত্রুতামূলক হত্যাকান্ডের ভয়ে মানুষ বাড়ীঘর ছাড়িয়া অন্যত্র আশ্রয় লইতেছে৷ যাহারা বিত্তশালী তাহারা শহরের আত্মীয়-স্বজনদের বাড়ীতে এমনকি শহরের আবাসিক হোটেলগুলিতে পর্যনত্ম আসিয়া উঠিতেছেন৷ যাঁহাদের শহরে বাস করিবার সঙ্গতি নাই, তাহারা বনে-জঙ্গলে অথবা এখানে-ওখানে রাত্রি কাটাইতেছেন”৷ তারেক রহমান বলেন, বাপের শাসনামলের মতো একইঅবস্থা বেটির শাসনামলেও বিরাজ করছে৷ এখনো মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই৷
আওয়ামী লীগকে অকৃতজ্ঞ আখ্যা দিয়ে তারেক রহমান বলেন, শেখ মুজিব নিজেই ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারী আওয়ামী লীগকে গলাটিপে হত্যা করেছিলেন৷ একদলীয় শাসনব্যবস্থা কায়েম করেন৷ পরবতর্ীতে জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেন৷ আওয়ামী লীগেক পূনর্জন্ম দেন৷আওয়ামী লীগের উচিত কৃতজ্ঞতার সাথে জিয়াউর রহমানকে স্মরণ করা৷ তারেক রহমান বলেন, আওয়ামী লীগের নিজ দলের নামেও গলদ৷ আওয়ামী শব্দটি উর্দু এর অর্থ জাতি আর লীগ শব্দটি ইংরেজি৷ এর অর্থ পার্টি৷ আওয়ামী লীগের অর্থ জাতি পার্টি৷ এতোদিনেও তারা নিজের দলের নামও পরিবর্তন করতে পারেনি৷
উলেস্নখ্য, এরআগে দেশের বাইরে একবার জেদ্দায় এবং কয়েকদফা লন্ডনে বাংলাদেশের সার্বিক আর্থ সামাজিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বক্তৃতা করেন তারেক রহমান৷ এবার প্রথমবারের মত বক্তৃতা করলেন মালয়েশিয়া প্রবাসী বিএনপি’র নেতাকমর্ী ও শুভাথর্ীদের উদ্দেশ্যে৷ এই সভায় মালয়েশিয়ার কেপাং, পুচং, কেলাং, শাহ আলম, কেলাংমেরম্নং, চুঙ্গাইবুলু মাজুদা, রাওয়াংসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে বিপুলসংখ্যক মানুষ অংশ নেন৷ তারেক রহমান অনুষ্ঠানস্থলে পৌছতেই নেতা-কর্মীরা তাকে স্বাগত জানিয়ে মুহুমুহু শেস্নাগান দিতে থাকে৷ সবাইতে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান তারেক রহমান৷ উলেস্নখ্য, ২রা জুন তারেক রহমান যুক্তরাজ্য থেকে মালযেশিয়া যান৷
সমাবেশে তারেক রহমান বলেন, শেখ হাসিনার হাতে দেশ ও দেশের জনগন নিরাপদ নয়৷ তাই দেশ এবং জনগনের জানমাল বাঁচাতে দেশনেত্রী বেগম খালেদার জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধভাবে সর্বাত্মক আন্দোলনের প্রস্তুতির শপথ নিতে সবার প্রতি আহবান জানান৷

শেয়ার করুন

Leave Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *